Archive for ‘কেন বিয়ে?’

July 18, 2013

হার্টের শক্তিশালী ওষুধ বিয়ে!

marriege


বিয়েতে কি লাভ? এমন প্রশ্নের জবাবে বিবাহিতরা বলেন, করেই দেখ না। তারকারা বলেন, জীবনে শৃঙ্খলা আসে। এই যে অগোছালো আমি বিয়ে করার পর পুরোপুরি ডিসিপ্লিন্ড হয়ে গেছি। জীবনের দর্শন বদলে গেছে। ইত্যাদি, ইত্যাদি। তারপরও যারা চিন্তিত বিয়ে করা নিয়ে তাদের জন্যই সুখবর।

read more »

July 4, 2013

বিয়ে করতে কি কোন প্রস্তুতির দরকার হয়?

লিখেছেনঃ স্বপ্নচারী আব্দুল্লাহ

ssi-weddingn

আমাদের সমাজে ছেলেমেয়েরা কেন বিয়ে করে?
অনেক তরুণ-তরুণীরা হয়ত বিয়ে করতে চায় কারণ তাদের বন্ধুবান্ধবরা বিয়ে করে ফেলছে, কারও আবার বাবা-মা চাপ সৃষ্টি করছে বিয়ে করার জন্য, কেউ ঘরের পারিবারিক জীবনের সমস্যা থেকে মুক্তির জন্যও বিয়ে করতে চায়। কেউ কেউ অন্যের শারীরিক সৌন্দর্য দেখে বা অর্থ-সম্পদের কারণে বিয়ে করতে আগ্রহী হয়। কেউ কেউ খুঁজে একজন সঙ্গী, কেউ পারিবারিকভাবে শক্ত একটা অবলম্বন পেতেও বিয়ে করতে চায় যেটা একটা বিয়ের মাধ্যমে সম্ভব। আবার মুসলিম হিসেবে রাসূলের সুন্নাহ পালনের মাধ্যমে ইবাদাত হিসেবেও বিয়ে করতে চান।

read more »

July 4, 2013

বিয়ে কি এমনই হওয়া উচিত? : স্বপ্নচারী

images56

আমরা এমন একটা সমাজে বসবাস করছি এখন, যেখানে প্রেম করার জন্য তেমন একটা ইচ্ছা/আগ্রহেরও দরকার পড়েনা, কিছু বুঝে উঠার আগেই তা একেকজনের উপরে আপতিত হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সমস্ত মেয়েরা এই অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়। বন্ধুর মাধ্যমে, ফোনে, ফেসবুকের ইনবক্সে কেবলই প্রেমের জয়গান। শ্লোগান শোনা যায়, “যদি বন্ধু হও হাতটা বাড়াও”, আর এই হাত বাড়ালেও হলো, তারপরেই পথ খুলে যায় আনন্দের — শহরের এখানে-ওখানে অজস্র আনন্দ-আবেগের ভাগাভাগি, খুঁনসুঁটি, হাসি-ঠাট্টা-উচ্ছ্বাস প্রকাশ করা যায় আরো অজস্র পথচারীদের সামনেই। আর এই অপার আনন্দকে পেতে কেবল একটা জিনিস লাগে — “ইচ্ছা”।

read more »

July 4, 2013

বিয়ের অপর নাম প্রশান্তি, উচ্ছ্বাস আর দয়া : স্বপ্নচারী


লেখাটি সংগ্রহ করা হয়েছে স্বপ্নচারীর ব্লগ থেকে

কিশোর বয়স থেকে বিয়ের ব্যাপারে আমার একটা প্রশ্ন ছিলো মনে, সেই প্রশ্নটা যাদের করেছিলাম, তাদের উত্তর কিছু খুবই নিম্নমানের। তাই আদতে আমার কৌতুহল নিবৃত্ত হয়নি। প্রশ্নটি ছিলো, দু’জন মোটামুটি অপরিচিত মানুষ কীভাবে সারাটা জীবন একসাথে কাটিয়ে দিতে পারে? মোটামুটি অপরিচিত বললাম এই কারণে যে, বিয়ের আগে থেকে আসলে তেমন একটা জানাজানি একদমই সম্ভব না। একসাথে থাকতে গেলে তখন টের পাওয়া যায় যে অনেকে অনেক ছোট-ছোট বিষয়েই বিরক্ত হয়। আর তার উপরে যখন একটা বয়স পরে অনেকের শরীরে রোগবালাই ভর করে, তখন তো অপরজন অপার ভালোবাসায় আর যত্নে তার দেখাশোনা করেন — এমনটাই বা কী করে সম্ভব?

read more »

July 3, 2013

বিয়ে না করতে পারলে সাওম?

লেখাটি সংগ্রহ করা হয়েছে ফেসবুক পেজ প্রেম নয় বিয়ে করুন, আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করুন থেকে।

cropped-beautiful-wedding-rings-facebook-cover-timeline-banner-for-fb1.jpg

১) “আল্লাহ কাউকে তার সাধ্যাতীত কোন কাজের ভার দেন না” [সুরা বাকারাহ ২৮৬]
২) “সামর্থ্য না থাকলে বিয়ে করা যাবে না”।

দুটোই ঠিক আছে। তবে আমজনতা সামর্থ বললে যা বুঝে বসে আছে তাতে গন্ডগোল আছে। কোন ছেলে বিয়ের কথা বললেই যারা মুখস্ত রোজার কথা বলে বসেন তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় সাওম জিনিসটা কোন প্রকটতায়, কোন প্রেক্ষাপটে সেটা ভেবে দেখার সুযোগ পান নি।

read more »

July 3, 2013

ইসলামের প্রকৃত বিয়ে ও বর্তমান চিত্র

লিখেছেনঃ আফরোজা শবনম

muslim_marriage

ইসলামে নারী ও পুরুষের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনের জন্য বিয়েই একমাত্র বৈধ উপায়, একমাত্র বিধিবদ্ধ ব্যবস্থা। বিয়ে ছাড়া অন্য কোন ভাবে নারী পরুষের মিলন ও সম্পর্ক স্থাপন সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। বিয়ে হচ্ছে পুরুষ ও নারীর মাঝে সামাজিক পরিবেশে ও সমর্থনে শরীয়ত মোতাবেক অনুষ্ঠিত এমন এক সম্পর্ক স্থাপন, যার ফলে দু’জনে একত্রে বসবাস ও পরস্পরে দাম্পত্য সম্পর্ক ও সন্তান উত্পাদন সম্পর্ণরূপে বৈধ হয়ে যায় এবং যার ফলে পরস্পরের ওপর অধিকার ও দায়িত্ব কর্তব্য অবশ্য পালনীয় হয়ে দাঁড়ায়। রাসূলাল্লাহ (স.) বলেন, আল্লাহ “দাম্পত্য সম্পর্ককে নৈকট্য ও আত্মীয়তার মাধ্যম হিসেবে নিধারণ করেছেন এবং এটাকে অবশ্যকীয় বিষয় করেছেন যার কারণে আত্মীয়তার বন্ধন মজবুত হয়। সমগ্র মানব মানবীর মধ্যে এই বিষয়ে আকর্ষণ ও অনুরাগকে সহজাত করেছেন এবং বংশের দ্বারা সম্মানিত করেছেন”।

read more »

June 28, 2013

বিবাহ সমাচার

muslim marriage

ভার্সিটির শেষ বর্ষে বিয়ে করলাম, বর্তমান আদু ভাই টাইপ সমাজে এটা নাকি অল্প বয়সে বিয়ে করা। যাই হোক , আমি আর আমার বউ সি এন জির অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছি, হঠাৎ ভার্সিটির এক স্যারের সাথে দেখা, আমার মত একজন দাঁড়িওয়ালা লোককে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখলো এক নিকাবির পাশে। ব্যস, স্যার ২+২=৪ মিলায় দিলেন।

read more »

June 20, 2013

ইসলামে বহুবিবাহের ধারণা, আপত্তি ও বাস্তবতা (বিবাহ ও ইসলাম -৩)

cropped-newly-married-couple-hands.jpg

-পূর্ব প্রকাশের পর
ইসলামে বিবাহ বিষয়টি বিস্তৃত একটি অধ্যায়। তাই আমি কয়েকটি পর্বে ধাপে ধাপে এ নিয়ে আলোচনা করছি। পূর্বেকার দু’টি পোষ্টের প্রথমটিতে ইসলামে বিবাহ সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা ও বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিবাহের অপ্রয়োজনীয় খরচ বাড়ানো এবং দ্বিতীয় পোষ্টে ‍”বিবাহের দ্বারা যে নারী লাভবান হয় এবং ব্যভিচার দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হয় তা বোঝানো হয়েছে। লেখার শেষে বলেও দেয়া হয়েছিলো যে “বহুবিবাহ, তালাক, ও অন্যান্য কিছু বিষয় নিয়ে পরবর্তী পোষ্টে আলোচনা করবো ইনশা আল্লাহ।”

read more »

June 20, 2013

বিবাহ না ব্যভিচার : কিসে নারীর উপকার? (বিবাহ ও ইসলাম -২)

(উৎসর্গ: যারা বিবাহের ইচ্ছা করেছেন কিন্তু পারিপার্শ্বিক সমস্যার কারণে এখনও করে উঠতে পারেন নি। অথবা যারা অচিরেই বিয়ে করতে যাচ্ছেন, এই সিরিজটি তাদের কিছুটা হলেও উপকারে আসবে আশা করি।)

images56

পূর্বের লেখা: বিবাহ ও ইসলাম -১

(পূর্ব প্রকাশের পর)
পাশ্চাত্য সভ্যতা যিনা-ব্যভিচারকে সহজ থেকে সহজতর করে দিয়েছে। ইউরোপ-আমেরিকায় নারী-পুরুষ স্বেচ্ছায় যদি যিনা-ব্যভিচারে লিপ্ত হয় তাহলে তাদের আইন ও সমাজের দৃষ্টিতে এটা কোন অন্যায় নয়। বরং প্রয়োজনে রাষ্ট্র ও তার প্রশাসন এক্ষেত্রে তাদেরকে সহযোগিতা করে। নারীদেরকে অধিকার ও স্বাধীনতার নামে সমাজের সর্বত্র খোলা-মেলা ভাবে ছড়িয়ে দিয়ে, সেক্স সিম্বল হিসেবে চিত্রিত করে, বেহায়াপনা ও উলঙ্গ পনাকে আধুনিকতা বুঝিয়ে তাদেরকে বিবস্ত্র করে যিনা-ব্যভিচারের ক্ষেত্রকে উন্মুক্ত করে দিয়েছে। নারীর অধিকারের কথা বলা হলেও এর মাধ্যমে মূলত: পাশ্চাত্য সমাজ আসলে পুরুষদের ভোগের সহজলভ্য ব্যবস্থা করেছে। সামান্য অর্থ, ক্যারিয়ারের উন্নতি, বসের সন্তুষ্টি কিংবা প্রেমের মরীচিকায় ফেলে পুরুষের যথেচ্ছাচারিতার সহজ শিকারে পরিণত করা হয়েছে নারীদেরকে।

read more »

June 20, 2013

বিবাহ ও ইসলাম -১

(উৎসর্গ: যারা বিবাহের ইচ্ছা করেছেন কিন্তু পারিপার্শ্বিক সমস্যার কারণে এখনও করে উঠতে পারেন নি।)

images1

মহান আল্লাহ পবিত্র কুরআনে বলেন,
يَا أَيُّهَا النَّاسُ اتَّقُوا رَبَّكُمُ الَّذِي خَلَقَكُمْ مِنْ نَفْسٍ وَاحِدَةٍ وَخَلَقَ مِنْهَا زَوْجَهَا وَبَثَّ مِنْهُمَا رِجَالًا كَثِيرًا وَنِسَاءً وَاتَّقُوا اللَّهَ الَّذِي تَسَاءَلُونَ بِهِ وَالْأَرْحَامَ إِنَّ اللَّهَ كَانَ عَلَيْكُمْ رَقِيبًا (১)
অর্থ: “হে মানুষ, তোমরা তোমাদের রবকে ভয় কর, যিনি তোমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন এক উৎস থেকে। আর তা থেকে তোমাদের স্ত্রীদেরকেও সৃষ্টি করেছেন। এরপর তা থেকে ছড়িয়ে দিয়েছেন বহু পুরুষ ও নারী। আর তোমরা আল্লাহকে ভয় কর, যার মাধ্যমে তোমরা একে অপরের কাছে চাও। আর ভয় কর রক্ত-সম্পর্কিত আত্মীয়ের ব্যাপারে। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের উপর পর্যবেক্ষক।” (সূরা নিসা, আয়াত ০১)
এই আয়াত দ্বারা বুঝা যাচ্ছে প্রাকৃতিক ও আনুষঙ্গিক প্রয়োজন পূরণের জন্য নারী পুরুষ বিবাহের মাধ্যমে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে একটি পবিত্র সম্পর্কের বাঁধনে যুক্ত হয়।

read more »